তীব্র শীতে নীলফামারীর জনজীবন বর্পিযস্ত হয়ে পড়ছেে

36
0

গেল এক মাস থেকে কনকনে শীত, ঘন কুয়াশা ও হিমেল বাতাসের কারনে উত্তরের জনপদ নীলফামারীর জেলার নিম্ন আয়ের মানুষ দিনমজুর ও ছিন্নমুল মানুষের জীবন দূবির্ষ হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে দিনমজুর শ্রোনির মানুষেরা পড়েছে চরম বিপাকে। ঘন কুযাশার কারনে দিনের অর্ধেক সময়ই বের হতে পারছেন না কাজে। সমাজ কর্মীরা বলছেন, উত্তর জনপদের নীলফামারীতে যে ভাবে শীত জেঁকে বসেছে সেই হিসাবে শীতবস্ত্র পাচ্ছে না শীতার্থ মানুষ। অভাবী জনপদ হিসাবেই সরকারী ও বেসরকারী ভাবে আরো শীতবস্ত্র প্রয়োজন শীতার্থ মানুষের ।

হিমালয়ের গাঁ ঘেঁষা অঞ্চল উত্তরের জনপদ নীলফামারী। ফলে এই অঞ্চলে শীতের প্রকোপ থাকে সব সময় বেশি। গেল ডিসেম্বর থেকে এ পর্যন্ত নীলফামারী জেলায় বেশি ভাগ সময় সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। ৮ ডিগ্রী সেলসিয়েস থেকে ১৩ ডিগ্রী সেলসিয়েস মধ্যে উঠা নামা করছে তাপমাত্রা। কোনো কোনো সময় তাপমাত্রা কিছুটা বেশি থাকলেও শীতের তীব্রতা কখনোই কমেনি। কারন ঘন কুয়াশা ও শিতল বাতাস বইছিলো সারাক্ষণ। নীলফামারীর অঞ্চলে এসময় কৃষি শ্রমিকের হাতে কাজ না থাকায় তাদের বেশি ভাগই এখন দিনমজুর, ভ্যান গাড়ী ও রিক্সা চালিয়ে দিনাতিপাত করে। কিন্তু তীব্র শীতের কারনে এরাই পড়েছে চরম বিপাকে। দিনের অর্ধেক সময়ই তারা কাজে বের হতে পারছেনা ঘন কুয়াশার কারনে। তাছাড়া নিম্ন আয়ের অঞ্চল হওয়ায় শীতবস্ত্রেরও সংকট এখানে চরম।

ঘন কুয়াশার কারনে কৃষকেরাও পড়েছেন বিপর্যয়ের মধ্যে। বোরো আবাদের জন্য বীজতলা তৈরি করলেও সেগুলোর সিকি ভাগই নষ্ট হয়ে গেছে। নতুন করে তৈরি করতে হবে বীজতলা।

শীতের তীব্রতা ও ঘন কুয়াশার কারনে নীলফামারী থেকে ছেড়ে যাওয়া আন্তনগর ট্রেন গুলোও চলছে প্রায় ৬/৭ ঘন্টা দেরিতে। ফলে যাত্রীরাও শীতের জন্য পড়ছেন বিড়ম্বনার মধ্যে। তীব্র শীতের কারনে ছিন্নমুল মানুষেরা অশ্রয় নিয়েছেন মানুষের বারান্দায় ও ষ্টেশনের প্লাটফর্মে। শীতবস্ত্রে অভাবে ছিন্নমুল মানুষের জনজীবন চরম সংকটে পড়েছে।

নীলফামারী কৃষি প্রধান অঞ্চল। নিম্ন আয়ের লোকের সংখ্যা এখানে বেশি। তীব্র শীতের কারনে দূস্থ মানুষের মাঝে যে প্ররিমাণ শীতবস্ত্র বিতরনের প্রয়োজন ছিলো তা পাইনি মানুষ। সরকারী-বেসরকারী ভাবে সকলকেই শীতের সময় দুস্থ শীতার্থ মানুষের পাশে দাড়ানো প্রয়োজন।

নীলফামারী এপর্যন্ত সরকারী ভাবে ৪২ হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়েছে। শীতার্থদের মাঝে নগদ ১০ হাজার টাকা বিতরণ ও শিশুদের জন্য ২ লাখ টাকার শীতবস্ত্র বিতরন করা হয়েছে। এয়াড়াও বেসরকারী সাহায্য সংস্থাগুলো ও ব্যক্তি উদ্যোগেও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here