বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি:
নৌ-পরিবহন মন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে বেনাপোল স্থল বন্দরের প্রধান ফটক সেজেছে বসুন্ধরা গ্র“পের আটা ময়দা এবং সুজির বিজ্ঞাপন আর অপর দিকে অবহেলিতভাবে পড়ে আছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ছবি। বন্দর কতৃপক্ষের দুর্নীতি ও অনিয়ম হয়তো মন্ত্রী মহোদয়কে অব্যাহিত করতে পারে যার কারনে সংবাদকর্মীদেরকে বৈঠক কক্ষ থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু’র ছবি বাইরে ফেলে রেখে বসুন্ধরা গ্র“পের আটা, ময়দা, সুজির বিজ্ঞাপন সামনে রেখে মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানালেন বন্দর কতৃপক্ষ। স্থানীয় সাংবাদিকরা নৌ-পরিবহনমন্ত্রীর বৈঠকের নিউজ কাভারেজ দেওয়ার জন্য বেনাপোল স্থলবন্দরের বৈঠক কক্ষে গেলে সাংবাদিকদের বের করে দেওয়া হয়েছে। ফলে প্রতিমন্ত্রীর বন্দর পরিদর্শন এবং মন্ত্রীর দিক-নির্দেশনার বিষয় গুলি প্রচারে বাধা সৃষ্টি করা হয়। বন্দর কর্তৃপক্ষের এহনো অপমানজনক কর্মকান্ডে বেনাপোল ও শার্শার সকল সাংবাদিকবৃন্দ নিউজ প্রচার থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখে। বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রতি ধিক্কার জানায় শার্শা উপজেলার সকল সাংবাদিকবৃন্দ।

এই বৈঠকের নিউজ বর্জন করে বক্তব্যে সীমান্ত প্রেসক্লাব বেনাপোলের সভাপতি মোঃ সাহিদুল ইসলাম শাহীন, সাংবাদিক আব্দুর রহিম, বন্দর প্রেসক্লাব বেনাপোলের সাধারন সম্পাদক আজিজুল হক বলেন স্থলবন্দরের অনিয়মের কারনে আজকে সাংবাদিকদেরকে সেখানে বৈঠকে উপস্থিত হতে দেয়নি বন্দর কতৃপক্ষ। এটা খুবই লজ্জাজনক ব্যাপার। আমরা সকল সাংবাদিকরা সর্বপোরী ধিক্কার জানাই। সাংবাদিক আব্দুর রহিম বলেন, দেশ ও জাতীর কল্যানে কাজ করে সংবাদকর্র্মীরা। আজ এই সংবাদের টানে ছুটে আসে সংবাদকর্মীরা স্থলবন্দর আন্তর্জাতিক প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে। নৌ-পরিবহন মন্ত্রী এসেছে বলে আমাদের সংবাদকর্র্মীরা নিউজ কাভারেজ দেওয়ার জন্য এখানে এসেছে। বেনাপোল স্থল বন্দরের কর্মকর্তারা মাইকে ঘোষনা দেয় বৈঠক কক্ষথেকে সংবাদকর্মীদের বেরিয়ে যেতে বলে।

বন্দর প্রেসক্লাব বেনাপোলের সাধারন সম্পাদক আজিজুল হক বলেন, বন্দরের দুর্নীতি ও অনিয়ম হয়তো মন্ত্রী মহোদয়কে অব্যাহিত করতে পারে যার কারনে সংবাদকর্মীদেরকে বৈঠক কক্ষথেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। আমরা এই ধরনের আচরনকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

রাসেল ইসলাম/হাবিব ইফতেখার/শাহিনুর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*