আখাউড়া প্রতিনিধি:

খুব শীঘ্রই রাজাকারের তালিকা প্রনয়ন করা হবে এবং এ মাসের মধ্যেই রাজাকারের প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ হবে। এসব কথা বলেন,  মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে মুক্তিযোদ্ধা একাডেমি ট্রাস্টের একটি সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান শেষে শনিবার সকালে ঢাকায় ফিরে যাওয়ার পথে আখাউড়া স্থলবন্দর নোম্যান্সল্যান্ডে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় মন্ত্রী আরো বলেন, বাংলাদেশে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরৎ পাঠানোর ব্যাপারে ভারত সর্বাত্বক সহযোগিতা করবে।

তিনি বলেন, ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক পৃথিবীর মাঝে নজীর স্থাপন করেছে এবং তা বজায় থাকবে। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে ত্রিপুরার অবদান কখনও ভোলায় নয় জানিয়ে আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ত্রিপুরায় ৪টি সেক্টরে বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধাদেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া হতো এবং  সেখানে শরণার্থী ক্যাম্প ছিল। ওই চার সেক্টরের মধ্যে ‘পদ্মা’ নামক সেক্টরের চীফ হিসাবে আমি (মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী) দায়িত্ব পালন করিছিলাম।

মন্ত্রী বলেন, ৭১’র মুক্তিযুদ্ধের সময়কার ত্রিপুরার ওইসব সেক্টরগুলো কীভাবে সংরক্ষণ করা যায় সেসব বিষয়ে ত্রিপুরা সরকারের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, ত্রিপুরায় নিযুক্ত বাংলাদেশ সহকারী হাইকমিশনের মাধ্যমে ভারত কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা হবে।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার রেইনা, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি এ কে এম শরীফুল হক, পুলিশের আখাউড়া-কসবা সার্কেল আব্দুল করীম, আখাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ রসুল আহম্মেদ নিজামীসহ আরো অনেকে।

বাদল আহাম্মদ খান/হাবিব ইফতেখার/শাহিনুর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*