লেবানন প্রতিনিধি:

যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগম্ভীর পরিবেশের মধ্য দিয়ে বৈরুতের বাংলাদেশ দূতাবাসে স্বাধীন বাংলার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল আনুষ্ঠানিক ভাবে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ, প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, নিরবতা পালন, বাণীপাঠ, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল।

সকালে দূতাবাসে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন লেবাননে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার। এ সময় দূতাবাসের সকল কর্মকর্তাসহ প্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটি উপস্থিত ছিলেন। বিকালে দূতাবাসের হলরুমে শুরু হয় মূল অনুষ্ঠান। প্রথমেই বঙ্গবন্ধুর জীবনের উপর নির্মিত প্রামান্য চিত্র প্রদর্শনসহ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রদূত। পরে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, বাংলাদেশ আওয়ামী যুব লীগ ও বাংলাদেশ আওয়ামী শ্রমিক লীগ শাখার নেতৃবৃন্দ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।  ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের কালো রাত্রিতে বঙ্গবন্ধুসহ যারা শাহাদাৎ বরন করেছেন, তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালনসহ সকলের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া পাঠ করা হয়। এরপর জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ থেকে প্রেরিত রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন দূতাবাসের কর্মকর্তাবৃন্দ।

এরপর আলোচনা পর্বে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য প্রদান করেন। আলোচনায় অংশ নিয়ে রাষ্ট্রদূত আব্দুল মোতালেব সরকার বঙ্গবন্ধুর দীর্ঘ সংগ্রামী জীবন, রাজনৈতিক আদর্শ ও বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনে তাঁর অবদানের কথা তুলে ধরেন । তিনি মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর কর্ম জীবন ও দীর্ঘ সংগ্রামের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে আরো বেশি করে তুলে ধরার আহবান জানান।

তিনি আরো বলেন, আসুন আমরা আরো একবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় জাগ্রত হই। আমরা সবাই একতাবদ্ধ হই। যারা দেশের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের চক্রান্তে লিপ্ত আছে, তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।

 

বাবু শাহ/হাবিব ইফতেখার/শাহিনুর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*