গাইবান্ধা প্রতিনিধি:
গাইবান্ধা জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, যমুনা, ও করতোয়া নদীর পানি ক্রমাগত বাড়ছে। অতিরিক্ত পানির তোপে গাইবান্ধা সদরের ঘাঘট ও ফুলছড়ির ব্রহ্মপুত্র নদীর বাধের ১৮ অংশ ভেঙ্গে গিয়ে শহরের অনেক অঞ্চলসহ ফুলছড়ির পুরো এলাকা ও জেলার বিভিন্ন অংশ বন্যায় কবলিত হয়ে পড়েছে।

জেলার সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সদর উপজেলার অন্তত ৩’শতাধিক গ্রামের ৫ লক্ষ্য মানুষ পানি বন্ধি হয়ে পড়েছে । প্রতিদিনি বন্যা কবলিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এতে এসব এলাকার ঘড়বাড়ি বিভিন্ন ফসলী জমি ও রাস্তা-ঘাট পানিতে তলিয়ে গেছে। বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা। পাঠদান বন্ধ হয়েছে অসংক্ষ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।

বিশুদ্ধ পানি ও গবাদি পশু রাখার জায়গার অভাবে দূর্ভোগে পরেছেন বন্যা কবলিতরা। রাস্তায় অকিরিক্ত পানি ও ব্রিজ ডেবে যাওয়ায় গাইবান্ধার সাথে ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জের সকল প্রকার যোগাযোগ বন্দ হয়ে পড়েছে। আর এদিকে রেল-লাইন পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় গাইবান্ধা রুটের সকল রেল যোগাযোগ বন্দ হয়ে গেছে। শহরে পনি ডোকায় জেলা প্রসাশক পুলিশ সুপারের বাসভবন, উপজেলা পরিষদ, পুলিশ লাইন্স, এটি আই কলেজ, টি এন টি অফিস, পশু হাসপাতাল, পূর্ত ভবন, সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজ সহ অনেক সবকারি বেসরকারি পতিষ্ঠান পানিতে বাসছে ।

খালেদ হোসেন/হাবিব ইফতেখার/শাহিনুর/এস রহমান

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*