Home নির্বাচিত খবর ঠাকুরগাঁও সরকারী হাসপাতালে মেশিন উধাও, যন্ত্রপাতি অকেজ, অপারেশন বন্ধ,রোগীদের দূর্ভোগ।

ঠাকুরগাঁও সরকারী হাসপাতালে মেশিন উধাও, যন্ত্রপাতি অকেজ, অপারেশন বন্ধ,রোগীদের দূর্ভোগ।

364
0

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :
অসুখ বিসুখের হাত থেকে বাঁচার তাগিদে মানুষ ডাক্তার এবং হাসপাতালের আশ্রয় নেয়, চিকিৎসা সেবা পাবার জন্য। আর সেটিই যদি ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়ায় তখন মানুষ যাবে কোথায়? তেমনি একের পর এক অভিযোগ উঠে আসছে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের। অব্যবস্থাপনার কারণে রুগীরা ভীত শংকিত। তার উপর যদি অপারেশনের রুগী হয়ে থাকে তবে আধমরা হয়ে পালিয়ে যাচ্ছেন বাঁচার আশায় উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রাইভেট ক্লিনিকে। তাই ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালটি থেকেও এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এলাকার সাধারণ মানুষ। এ নিয়ে আমাদের ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি সোহেল পারভেজের পাঠানো তথ্য ও ভিডিও চিত্রে ডেস্ক থেকে আমি মৌরী বিস্তারিত জানাচ্ছেন নিপূন সাহা।
একশত শয্যা বিশিষ্ট ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের ৩টি অপারেশন থিয়েটারের সিলিং লাইট ও এ্যানেসথেসিয়া মেশিন নষ্ট হওয়ায় প্রায় তিন মাস ধরে সার্জিক্যাল, অর্থোপ্যাডিক ও সিজারিয়ান চিকিৎসা বন্ধ রয়েছে। এ হাসপাতালে চিকিৎসা না পেয়ে, জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়ে ভর্তি হচ্ছে প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। এব্যাপারে ভুক্ত ভোগী রুগী ও রোগীর স্বজনরা জানান-
এদিকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের নার্স পারুল বলছেন অন্যকথা-

১৯৮৭ সালে স্থাপিত হওয়া এ হাসপাতালে একের পর এক সমস্য লেগেই আছে। যন্ত্রপাতি বিনষ্ট ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ ১৫ জন চিকিৎসকের পদ শুণ্য
রয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে।

ছুটি না নিয়ে ২জন ডাক্তার অনুপস্থিত রয়েছেন। শুধু তাই নয় এই সদর হাসপাতালের এক্স-রে মেশিনটিও উধাও হয়েছে।

বিষয়টি ঠাকুরগাঁও ,সিভিল সার্জন, ডা.এহসানুল করিম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি আমাদের প্রতিনিধির ক্যামেরা দেখে ক্ষিপ্ত হন এবং কোন কথা বলতে রাজী নন বলে তিনি কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান।
বাস্তবতা যদি এমন হয় তাহলে সরকারী ডাক্তার এবং সরকারী হাসপাতাল মূল্যহীন হয়ে পড়ে।
mktelevision.net /সোহেল পারভেজ/হাবিব ইফতেখার/মৌরী/নিপূণ সাহা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here