নীলফামারী প্রতিনিধি :

শিক্ষার কাঠামো গত সূচনা যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হয়, যেখানে শিশুকাল থেকে পাঠদানের মধ্যদিয়ে শিক্ষার আলো বিকশিত করে। আর সেই প্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো যদি না থাকে তখনই পাঠদানের ব্যাঘাত ঘটে। সেই রকমই একটি অবহেলিত ও ব্যাঘাতপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, নীলফামারীর চাপড়া শুকানপুকুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। এনিয়ে দেখুন একটি ডেস্ক রিপোর্ট-

নীলফামারী সদর উপজেলার চাপড়া সরমজানি ইউনিয়নের শুকানপুকুর এলাকাবাসী ১৯৯১ সালে ৩৭ শতক জমির ওপর বিদ্যালয়টি গড়ে তোলেন। ১৯৯৬ সালে এ স্কুলটিকে সরকারীকরণ করা হলেও প্রত্যন্ত পল্ল¬ীর এ স্কুলটি সরকারী যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত।

টিনের ভাঙ্গা একটি ঘর, যার মধ্যে নেই কোন পার্টিশন, কোন দরজা-জানালা, শিক্ষার্থীদের বসার ব্যবস্থা, এমনকি শিক্ষকের অফিস ঘর ও নেই।
বিদ্যালয়টির সম্পদ বলতে চৌচালা টিনের ভাঙ্গা একটি ঘর, ১৪ জোড়া ব্রেঞ্চ, দুটি ভাঙ্গা ব্লাকবোর্ড আর একটি জাতীয় পতাকা। ৪জন শিক্ষক ও ২৩৫জন শিক্ষার্থী নিয়ে দিনের পর দিন এভাবেই চলছে বিদ্যালয়টি।

বিদ্যালয়ে ভবন নাথাকায় ২টি শ্রেণীতে পাটদান দেওয়া হয় এবং ৩য় শ্রেণী মাঠে পাঠদান দেওয়া হয় । বর্ষাকালে বৃষ্টির সময় এমন অবস্থা দাড়ায় যে, বসার যায়গার অভাবে আমরা তাদের ছেড়ে দেই

অবকাঠামোগত উন্নয়ন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়ায় এ বিদ্যালয়ে কো-কারিক্যুলাম এক্টিভিটি নেই বললেই চলে। তবে বিগত ৩ বছর ধরে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় শতভাগ পাশের ধারা অব্যাহত রেখেছে বিদ্যালয়টি।

বিদ্যালয়টির উন্নয়নে সুদৃষ্টি দিতে শিক্ষাবান্ধব এ সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসী।

mktelevision.net/টুইংকেল/ইফতেখার/রাজু/আল মামুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*