ময়ূরকণ্ঠী রান্নাঘর :
আসুন হাঁসের মাংসের কালিয়া কিভাবে মজাদার করে রান্না করা যায়। তাহলে ভিডিওটা একনজর দেখে নিলে সহজ হবে। তাহলে শুরু করা যাক, হাঁসের মাংসের কালিয়া! তবে প্রথমে বলে নেই, এই রান্নাকে কেন কালিয়া বলা হয় তা আমাদের জানা নেই। তবে এই রেসিপি যুগ যুগ ধরে আমাদের খাবারের তালিকায় চলে আসছে এবং এটা একটা আমাদের একটা প্রাচীন রান্না। দেশের নানা হোটেলেও এই রান্না পাওয়া যায়। চলুন রান্না ও রেসিপি দেখে ফেলি!
উপকরন ও পরিমাণঃ
– একটা হাঁস, এক কেজি বা বেশী (চমড়া ফেলা হয় নাই)
– পেঁয়াজ কুঁচি, হাফ কাপের বেশী
– দারুচিনি, এক ইঞ্চি, ৩/৪ পিস
– আদা বাটা, দুই টেবিল চামচ
– রসুন বাটা, দেড় টেবিল চামচ
– লাল মরিচ গুড়া, এক চা চামচ (ঝাল বুঝে)
– হলুদ গুড়া, এক চা চামচের কিছু কম
– পরিমাণ মত লবণ (প্রথমে কম লবনেই শুরু করতে হবে)
– পরিমাণ মত তেল (বা হাফ কাপের কম)
– পানি (অতিরিক্ত কিছু পানি গরম করে রাখাই উত্তম)
বিশেষ মশলা মিক্স গুড়াঃ
(নিন্মের মশলা গুলো কড়াইতে টেলে বেটে গুড়া করে নিতে হবে, প্রণালীতে ছবি দেয়া হয়েছে এবং শেষে এই মশলা মিক্সের ছবি দেখুন)
– জয়ত্রি, সামান্য
– জিরা, দুই চিমটি
– এলাচি, মাঝারি ৪/৫ টা
– লবঙ্গ, ৮/৯ টা
– শুকনা মরিচ, ৩/৪ টা মাঝারি
– মেথি, দুই চিমটি
– তেজপাতা, বড় একটা
– পাঁচ ফোঁড়ন, দুই চিমটি
– গোল মরিচ গুড়া, দুই চিমটি
(আমাদের ছবির মশলার সাইজ কিছুটা ভিন্ন হয়েছে)
প্রস্তুত প্রণালীঃ
হাঁস পরিস্কারঃ
হাঁসের লোম পরিস্কার করতে হালকা আগুনে পুড়িয়ে নিতে হয় এবং একটা একটা করে বেছে বেছে লোম কুপ গুলো তুলে নিতে হয়। পুরো কাজটা সাবধানে করতে হবে, হাত ও শরীরের যত্ন নিতে হবে আগে, সামান্য ভুল করা চলবে না।
হাঁস কাটার মধ্যেও একটা ব্যাপার আছে, হাড় গোড় দেখে কাটতে হয়। এতে মাংস গুলো সঠিকভাবে থাকে।
মশলা প্রস্তুতঃ
উপরের বিশেষ মশলা মিক্স এভাবে একটা কড়াইতে টেলে নিয়ে বেটে পাউডারে বা গুড়া করে নিতে হয়।
মুল রান্নাঃ
কড়াইতে তেল গরম করে প্রথমে পেঁয়াজ কুঁচি দিন, সাথে দিন সামান্য লবন এবং দারুচিনি। ভাঁজুন, আগুন মাধ্যম আঁচে রাখুন।
পেঁয়াজ কুঁচি একটু হলদে হয়ে এলে আদা ও রসুন বাটা দিন এবং ভাঁজুন।
এবার লাল মরচ গুড়া এবং হলুদ গুড়া দিন।
এক কাপ পানি দিন এবং ভাল করে মিশিয়ে নিন।
ভাল করে কষিয়ে তেল উপরে উঠিয়ে নিন।
তেল উপরে উঠে গেলে ধুয়ে রাখা হাঁসের মাংস নিন।
এবং দিয়ে দিন।
ভাল করে মিশিয়ে নিন। আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে। কিছুক্ষন পরে এক কাপ গরম পানি দিন এবং আবারো মিশিয়ে নিন।
কিছুক্ষনের মধ্যে এই অবস্থায় এসে যাবে।
মাংস নরম না হলে আরো এক কাপ পানি দিতে পারেন এবং আগুন মাধ্যম আঁচে রেখে ঢাকনা দিন। চুলার ধার ছেড়ে যাবেন না, মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিন।
এই রকম দেখাবে।
তবুও মাংস নরম না হলে আবার পানি (গরম) দিতে পারেন।এই রকম দেখাবে।হ্যাঁ, এবার সেই বিশেষ মশলা মিক্স দিয়ে দিন এবং ভাল করে নাড়িয়ে মিশিয়ে নিন।ঢাকনা দিয়ে মাঝারি আঁচে রাখুন আরো কিছু সময়।ঝোল কেমন রাখবেন সেটা আপনি নিজেই সিদ্ধান্ত নিন। তবে এই অবস্থায় ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন, না লাগলে ওকে বলে আগে বাড়ুন।চুলা থেকে নামিয়ে কিছু সময়ের জন্য রাখুন।পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।
আহ, দারুন। হাঁসের মাংসের স্বাদ নিতে চাইলে কালিয়ার বিকল্প নেই! একদিন হালকা একটু কষ্ট করে করেই দেখুন না! হাঁসের মাংসের সাধারন রান্নাতো অনেক খেলেন এবার একটু ভিন্ন করে দেখুন।
আমাদের রান্না টেষ্টার বুলেট এই কালিয়া খেয়ে আবারো একদিন রান্নার জন্য আগেই বুক করে দিয়েছে!
সবাইকে শুভেচ্ছা। আমরা আসছি আরো আরো নুতন নুতন রান্না নিয়ে।
কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*