ময়ূরকণ্ঠী স্বাস্থ্য ডেস্ক :

আমরা প্রত্যেকেই হাই তুলে থাকি। সাধারণত ক্লান্ত থাকলে বা অনেক সময়ে ঘুম থেকে উঠে আমরা লম্বা লম্বা হাই তুলে থাকি। তবে রাতে পুরো সময় ঘুমানোর পরও কি ঘনঘন হাই তোলার অভ্যাস রয়েছে আপনার?

লিভার পরীক্ষা করুন যদি আপনি ক্লান্তি অনুভব না করেন, অথচ লক্ষ্য করেন যে হাই তোলার পরিমাণ বেড়ে গিয়েছে তাহলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে লিভারের নানা টেস্ট করানো আবশ্যক। পেটের নানা সমস্যায় হাই তোলার পরিমাণ বেড়ে যায়।

মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য অনেক সময়ে স্ট্রোকের আগের অবস্থায় এমন ঘটনা ঘটে। মস্তিষ্কের কোশ বেশিমাত্রায় ক্ষতির মুখে পড়লে ঘনঘন হাই তোলার সমস্যা হয় বলে সাম্প্রতিক সমীক্ষায় জানা গিয়েছে।

মৃগীরোগ মৃগীরোগের পূর্বাভাস দেয় ঘনঘন হাই তোলা। শরীরের মধ্যে চলতে থাকা নানা সমস্যার সঙ্কেত যায় মস্তিষ্কে ফলে ঘনঘন হাই উঠতে থাকে আমাদের।

ওষুধ খাওয়া অনেক সময়ে বেশি ওষুধ খেলেও আমাদের ক্লান্তি বেড়ে যায় ও হাই উঠতে থাকে। কোনও ওষুধ আপনার শরীরের সঙ্গে মানিয়ে নিচ্ছে না বুঝলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

ঘুমের ব্যাঘাত ঘুমের সমস্যা থাকলে বা ঘুম কম হলে ঘনঘন হাই উঠতে থাকে। যদি দেখেন এই সমস্য়া কমছে না, ঘুমও ভালো করে হচ্ছে না, তাহলে নিদ্রাহীনতার সমস্য়া বুঝে চিকিৎসকের কাছে যান।

ক্লান্তি সারাদিনের দৌড়াদৌড়ির পরে ক্লান্তি আসাটা খুব স্বাভাবিক। সেকারণেও অনেক সময়ে ঘনঘন হাই উঠতে থাকে আমাদের। তবে সাবধান। বেশিদিন এই সমস্যা চললে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

*